পর্ব ৬ wallet ওয়ালেট পরিচিতি কিভাবে ডিজিটাল ভাবে coin জমা ও লেনদেন করা হয়!


আসআলামু আলাইকুম

ডিজিটাল কারেন্সী শিক্ষা পর্ব ৬ আজকে আমরা জানবো  wallet কি?

এটার মুল ধারনা হলো টাকা বা asset জমা করা !

আমরা যেমন বিকাশ,নগদ এ টাকা জমা করি !

এগুলো দিয়ে বিভিন্ন কেনাকেটা,ক্যাশ আউট করি,বিল

অথবা ডলার $usd   জমা রাখার জন্য paypal,perfect money,payoneer এ রাখি !

সেখান থেকে ডলার  deposit ও  withdraw করা যায় !ঠিক তেমন ডিজিটাল  Asset  যেমনঃ  usdt,trx,ltc

এসব রাখার জন্য কিছু তেমন কিছু  wallet আছে !আজকে আমরা সেসব  wallet এর সাথে পরিচিত হবো !

এই ওয়ালেটগুলো ব্যবহার করা হয় বিভিন্ন ব্লকচেইন নেটওয়ার্ক এর সাথে লেনদেন করার জন্য !

wallet মুলত  দুই প্রকার :

HOT wallet ও Cold wallet !

এদের মুল তালিকা মাত্র তিনটি !

  1. Hardware walle
  2. software wallet
  3. paper wallet

এখন আমরা এসব ওয়ালেট এর ধারনার সাথে পরিচিত হবো !

HOT walletঃ হট ওয়ালেট হলো এমন সব ওয়ালেট যেসব  ওয়ালেট  দিয়ে ইন্টারনেট এর সাথে কানেক্ট করা যায় এবং এদের ব্যবহার করা খুব সহজ !

এবং ফ্রিতেই ডাউনলোড ও সেটাপ করা যায় ! তবে এগুলো  cold wallet  থেকে নিরাপত্তা কম !

সেজন্য Hacking এর শিকার  হওয়া তুলনামুলক সহজ !

HOT wallet  এর প্রকারভেদঃ

Desktop Wallet: যেসব ওয়ালেট ডেস্কটপ বা pc থেকে চালানো যায় !

মানে আপনার chrome,firefox browser থেকে  extension download করে এসব ওয়ালেট ব্যবহার করতে হবে !

একটা উদাহরন ঃ

Web wallet: web wallet হলো এমন ওয়ালেট যেখানে শুধু  একাউন্ট খুলেই সবরকম লেনদেন করা যায় !

আরো পড়ুন ঃ

Defi কি এবং এটার ব্যবহার!

কোন apps বা extension ডাউনলোড করা লাগে না !

একটা উদাহরনঃ

Mobile Wallet: মোবাইল দিয়ে চালানো যায় এমন ওয়ালেটকে বোঝায় ! সেজন্য আপনাকে বিভিন্ন অ্যাপস ডাউনলোড করে চালাতে হবে ! জনপ্রিয় কিছু এমন ওয়ালেট হলো trust wallet ও metamask wallet!

কিছু উদাহরনঃ

 

 

Cold walletঃ এই ওয়ালেট হলো এমন সব ওয়ালেট যেসব অফলাইনে কয়েন জমা করার জন্য ব্যবহার করা যায় ! এগুলো ইন্টারনেট এর সাথে যুক্ত হওয়া  ছাড়াও থাকতে পারে ! এজন্য আপনাকে  আলাদা ডিভাইস কিনে ব্যবহার করতে হবে !

আরো পড়ুন

ডিজিটাল কারেন্সি শিক্ষা পর্ব ১ ! কিভাবে একটা কয়েন এর তথ্য বের করবেন?

কোল্ড ওয়ালেট এর আরেকটা উপায় হলো পেপার ওয়ালেট যেখানে  শুধু  কাগজে  qr code বানানো !

Hardware wallet: Hardware wallet  হলো এমন সব ওয়ালেট যেগুলো চালাতে হলে বাস্তব ডিভাইস কিনতে হবে ! এবং সেটাপ করে পিসি এর সাথে usb  connect করে চালাতে হবে !

এটা খুবই নিরাপদ !

কিছু উদাহরন ঃ

 

 

paper wallet: কাগজের ওয়ালেট বানাতে হলে আপনাকে আগে linux run করে paper wallet generator যেমন myetherwallet দিয়ে qr code বানিয়ে কাগজে প্রিন্ট করতে হবে !

আরো পড়ুন ঃ

পার্ট ৩ টোকেনমিক্স বা টোকেন এর অর্থনীতি এর ধারনা !

একটা উদাহরনঃ

সব ওয়ালেট এর process একই প্রথমে ডাউনলোড করতে হবে বা ডিভাইস কিনতে হবে এরপর নিজের ১২ থেকে ২৪ এর private key generate করতে হয় !

এরপর কয়েন জমা ও উঠানো ,লেনদেন কেনাবেচা করা !

hot wallet এর চেয়ে cold wallet অনেক বেশি নিরাপদ secure !

আরো নতুন কিছু শিখতে জয়েন করুন আমার টেলিগ্রাম চ্যানেল !


আজকে এ পর্যন্তই ! আবার দেখা হবে আগামী পর্বে ! ধন্যবাদ !



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *